Home •ইসলাম

Article comments

•ইসলাম
ব্যর্থতা যেখানে ইবাদতে PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 01 January 2011 19:51

হাজারো প্রশ্ন ও হাজারো জীজ্ঞাসার মাঝে মানুষের বসবাস। অসংখ্য বিষয় নিয়ে মানুষের নিত্য সংসার। তবে জীবনের মূল প্রশ্ন ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কোনটি? এটি কি চাষাবাদ, ব্যবসা-বাণিজ্য, চাকুরি-বাকুরি বা জ্ঞান-বিজ্ঞানের বিষয়ে জ্ঞানলাভ? পেশাদারি জীবনে সফলতা বা অর্থ ও রাজনৈতিক জীবনে বিজয়ই জীবনের মূল সফলতা? মানব সৃষ্টির মূল লক্ষ্য কি এমন সফলতা? বিষয়টি এতই গুরুত্ব পূর্ণ যে এখানে ভূল হলে জীবনে বাঁচাটাই ব্যর্থ হতে ব্যর্থ। বিজ্ঞানের সূত্র, সমূদ্রের গভীরতা বা গ্রহনক্ষত্রের বিবরণ না জানলে জীবন কোন ক্ষতি হয় না। কিন্তু পুরা জীবনটাই ব্যর্থ হয় এ মূল প্রশ্নের উত্তর না জানায়। এটি এতই গুরুত্ব পূর্ণ যে  প্রশ্নের সঠিক জানাতে মহান আল্লাহতায়ালা লক্ষাধিক নবীরাসূল পাঠিয়েছেন। কেতাব নাজিল করেছেন। এবং সেটি ইতিহাস বা জ্ঞানবিজ্ঞান শেখাতে নয়। জীবনের সে লক্ষ্যটি হল ইবাদত।

Read more...
 
উপেক্ষিত জিহাদ ও পরাজিত ইসলাম PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 01 January 2011 07:49

মুসলমান হওয়ার জন্য কারো উপরই কোন বাধ্যবাধকতা নেই। “লা ইকরাহা ফিদ্দীন” কোরআনের এই বহুল প্রচারিত আয়াতের অর্থ হলঃ দ্বীনের ব্যাপারে কোন জবরদস্তি নেই। নবীজী (সাঃ)র আমলেও আরবের হাজার হাজার মানুষ অমুসলমান থেকেছে। মিশর, লেবানন, ইরাকসহ আরব দেশগুলির লক্ষ লক্ষ মানুষ আজও যে অমুসললিম, –তারা তো তাদেরই বংশধর। কোন মুসলিম সেনাবাহিনী কোন কালেই তাদেরকে মুসলিম হতে বাধ্য করেনি। কিন্তু যারা জেনে বুঝে মুসলিম হয় তাদের মাথার উপর অলংঘনীয় দায়িত্বও এসে যায়। অনেকটা সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার মত। সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে কাউকে বাধ্য করা হয় না। কিন্তু যোগ দিলে সেনাবাহিনীর বাইরের লোকদের থেকে তার দায়িত্বটা ভিন্নতর হয়। তখন প্রাণ হাতে রণাঙ্গণে যাওয়াটি তার মৌলিক দায়িত্ব ও কর্তব্যের মধ্যে এসে যায়। যুদ্ধে না গেলে বা নির্দেশ পালনে অবাধ্যতা দেখালে তার কোর্টমার্শাল হয়। বিচারে কঠোর শাস্তি হয়, এমনকি প্রাণদন্ডও হয়। প্রশ্ন হলো, মুসলমান হওয়ার পর সে বাধ্যবাধকতাটি কি? আর সেটি হলো, মহাশক্তিমান আল্লাহতায়ালার সাথে এক অলংঘনীয় চুক্তিতে আবদ্ধ হওয়া। এবং চুক্তিটি হলো, একমাত্র আল্লাহতায়ালাকে সে মাবুদ বা উপাস্য রূপে মেনে নিবে এবং নিজে তাঁর একান্ত দাসরূপ প্রতিটি হুকুমকে প্রতিনিয়ত মান্য করে চলবে। সেটি শুধু নামায-রোযা-হজ্জ-যাকাতের ন্যায় ইবাদতে নয়, বরং যেখানেই আল্লাহর হুকুম তাকে তৎক্ষনাৎ সঁপে দিতে হবে সে হুকুমের প্রতিপালনে।

Read more...
 
জিহাদে অনাগ্রহ এবং বিদ্রোহ যেখানে আল্লাহর বিরুদ্ধে PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 01 January 2011 06:38

নামায-রোযা-হজ্জ-যাকাতের ন্যায় জিহাদের হুকুমটিও এসেছে মহান আল্লাহতায়ালা থেকে। আল-কোরআনে সে হুকুম ঘোষিত হয়েছে একবার নয়, বহু বার। নামায-রোযা গড়ে মহান আল্লাহর সাথে মজবুত বন্ধন। দেয় আত্মীক পরিশুদ্ধি। আর জিহাদ দেয় শত্রুর হামলার মুখে প্রতিরক্ষা। নিশ্চিত করে আল্লাহর ভূমিতে একমাত্র আল্লাহর আইনের প্রতিষ্ঠা। তাই যেখানে জিহাদ নেই, সেখানে মুসলমানদের প্রতিরক্ষা নেই। এবং আল্লাহর আইনের প্রতিষ্ঠাও নেই। বরং এমন একটি জিহাদশূণ্য দেশে যেটি প্রবল ভাবে বাড়ে সেটি হলো মহান আল্লাহর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। মুসলিম ভূমি তখন অধিকৃত হয় দেশী ও বিদেশী দুষমনদের হাতে। মুসলিম দেশগুলিতে শয়তানী শক্তির বিজয় ও উল্লাস বেড়েছে তো এভাবেই। আল্লাহর ভূমি এভাবেই দখলে গেছে আল্লাহর দুষমনের। তাদের এ মহাবিজয়েরে ফলেই অধিকাংশ মুসলিম দেশে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে কাফেরদের আইন এবং আঁস্তাকুড়ে পড়েছে ইসলামের শরিয়তি বিধান। যাদের মধ্যে বিন্দুমাত্র ঈমান আছে তারা আল্লাহর দ্বীনের এমন অবমাননা কি মেনে নিতে পারে? পারে কি এ অবস্থায় শান্তিতে ঘুমুতে? বরং সে তো যা কিছু সম্বল আছে তা নিয়ে জিহাদে নামবে অথবা জিহাদের প্রস্তুতি নিতে থাকবে। এছাড়া তৃতীয় কোন অবস্থার কথা কোন ঈমানদার কি ভাবতে পারে?

Read more...
 
উম্মাহর ব্যর্থতা ও মুসলমানের দায়ভার PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 01 January 2011 07:16


কোন জাতির ব্যর্থতা নিছক সরকারের কারণে আসে না। বরং সেটি অনিবার্য হয় সে জাতির সাধারণ মানুষের ব্যর্থতায়। জাতির অর্জিত সফলতার কৃতিত্ব যেমন জনগণের, তেমনি ব্যর্থতার দায়ভারও জনগণের। দেশগড়ার দায়িত্ব নিছক রাজনৈতিক নেতা, প্রেসিডেন্ট, মন্ত্রী ও প্রশাসনিক কর্মচারীদের নয়। এ কাজ সমগ্র দেশবাসীর। এটি কোন খেলার বিষয় নয় যে, মুষ্টিমেয় খেলোয়াড় খেলবে এবং আমজনতা দর্শকরূপে দেখবে। এ কাজে দায়িত্ব সবার। একটি জাতি যখন নীচে নামতে থাকে তখন সে নীচে নামার কারণ, দেশ গড়ার গুরুত্বপূর্ণ কাজটি মুষ্টিমেয়র হাতে সীমাবদ্ধ হয় এবং বাকিরা দর্শকে পরিণত হয়। সকল বিফলতার জন্য তখন সেই মুষ্টিমেয় ব্যক্তিদের দায়বদ্ধ করা হয়। অথচ জাতির বিফলতার জিম্মাদারিত্ব সবার। পলাশির যুদ্ধে বাংলার স্বাধীনতা যখন অস্তমিত হলো তখন শুধু সিরাজুদ্দৌলার পরাজয় হয়নি বরং পরাজিত হয়েছিল বাংলার সমগ্র মানুষ। এ পরাজয়ের জন্য শুধু মীর জাফরকে দায়ী করে অসুস্থ চেতনার মানুষই শুধু নিজের দায়ভার ও দুরূখ কমাতে পারে, বিবেকবান মানুষ তা পারে না। সে পরাজয়ের জন্য দায়ী ছিল বাংলার সমগ্র মানুষ।

Last Updated on Saturday, 01 January 2011 07:29
Read more...
 
যে পথে মহাসাফল্য PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 19 December 2010 22:18

ব্যর্থতা ও সফলতার ভাবনা

মানব জীবনে সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা কোনটি? বড় অপরাধটাই বা কি? জীবনের সবচেয়ে বড় সাফল্যই বা কোন পথে? এগুলি অতি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। কিন্তু এ গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নগুলি ক’জনের জীবনে গুরুত্ব পায়? তা নিয়ে ভাবনাই বা ক’জনের? অথচ সে ভাবনার গভীরতা ও সুস্থ্যতার উপর নির্ভর করে জীবনের সফলতা। নবীজী (সাঃ) তাই চিন্তা-ভাবনাকে উত্তম ইবাদত বলেছেন। আর চিন্তাশূণ্য মানুষকে মহাজ্ঞানী আল্লাহ তার পবিত্র কোরআনে পশু বা তার চেয়েও অধম বলেছেন। ইসলামের মহান নবী (সাঃ) রাতের পর রাত হিরা পর্বতের গুহায় কাটিয়েছেন। সেখানে তিনি কোন মহৎ কর্ম বা ইবাদতটি করেছেন? সেটি তো গভীর চিন্তা-ভাবনা। ধ্যান মগ্নতার মাঝেই তাঁর জুটেছিল হযরত জিবরাইল (আঃ) মাধ্যমে মহান আল্লাহর অহি এবং নবী হওয়ার পয়গাম। একই ভাবে হযরত মূসা (আঃ)কে চল্লিশ দিনের জন্য সিনা উপাত্তাকার তুর পাহাড়ে ডেকেছিলেন। সেখানে ৪০টি দিন তিনি নির্জন চিন্তা-ভাবনায় কাটিয়েছেন। অর্জন করেছেন মহান আল্লাহর অহি।

Last Updated on Sunday, 09 January 2011 17:22
Read more...
 
<< Start < Prev 1 2 3 4 5 6 7 8 Next > End >>

Page 7 of 8
Dr Firoz Mahboob Kamal, Powered by Joomla!; Joomla templates by SG web hosting
Copyright © 2017 Dr Firoz Mahboob Kamal. All Rights Reserved.
Joomla! is Free Software released under the GNU/GPL License.