•সংস্কৃতি ও সমাজ
অপসংস্কৃতির স্রোতে ভাসা থেকে মুক্তি কোন পথে? PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 01 January 2011 13:39

আল্লাহতে বিশ্বাসী ও অনুগত হলে জীবন শ্লিল ও রুচীশীল হয়, আসে পবিত্রতা। ইসলাম পবিত্রতার প্রতিষ্টা চায় শুধু মসজিদে নয়, সমগ্র সমাজ ও রাষ্ট্রে। এমনকি আনন্দ-উৎসব ও শোক-দুঃখের আসর গুলোতেও। সমাজের কোন ক্ষুদ্রতর অংশ আনন্দ-উংসব বা সাংস্কৃতিক ক্রীয়াকর্মের নামে অশ্লিলতা ও নোংরামীতে আক্রান্ত হোক ইসলাম সেটি চায় না। কারণ এগুলো রোগ, আর রোগমাত্রই সংক্রামক। এগুলীর শুরু€ ক্ষুদ্রতার স্থান থেকে হলেও আস্তে আস্তে সেটি সমগ্র রাষ্ট্রকে গ্রাস করে। এ অশ্লিলতা নাটকের মঞ্চ, সিনেমা হল, যাত্রা দল বা নিষিদ্ধ পল্লীতে শুরু€ হলেও সেখানে সীমাবদ্ধ থকে না। আগুনের ন্যয় ঘর থেকে ঘর, গ্রাম থেকে গ্রামকে গ্রাস করে। এজন্যই ব্যক্তি ও জাতির পরিশুদ্ধির প্রয়োজনে ইসলাম সমাজের ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অঙ্গণ থেকেও অশ্লিলতার নির্মূল চায়। কোন স্থানকেই ইসলাম একাজে লাইসেন্স দিতে রাজী নয়।

Last Updated on Saturday, 01 January 2011 13:45
Read more...
 
সংস্কৃতি নিয়ে ভাবনা PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 01 January 2011 11:36

জাতি কতটা সভ্য বা উন্নত সেটির পরিমাপে সংস্কৃতি একটি নির্ভূল মাপকাঠি। একটি জনগোষ্টির চিন্তা-চেতনা, রূচীবোধ, চালচলন বা জীবনবোধের সামগ্রিক পরিচয় মেলে সংস্কৃতিতে। পশু বা উদ্ভিদের জীবনে সময়ের তালে বাঁচার প্রক্রিয়ায় উন্নতি আসে না। কিন্তু মানুষ তার সমাজকে নিয়ে সামনে এগোয়, পূর্বের চেয়ে উন্নততর ও সভ্যতর হয়। হাজার বছর পূর্বে পশুরা যা খেত আজকের জন্তু-জানোয়ারের খাদ্য, পানীয় বা বাসস্থানে অবিকল একই। কিন্তু মানুষ সামনে এগিয়েছে। আর সামনে এগুনোর এই যে প্রক্রিয়া সেটিই হলো সংস্কৃতি। এটি হলো সংস্কারের প্রচেষ্টা। যে কোন জীবন্ত ও সুস্থ্য জাতির জীবনে এ প্রচেষ্টা ক্রীয়াশীল থাকা শুধু কাক্সিক্ষতই নয়, অপরিহার্য। সমাজে সে প্রক্রিয়া কতটা সফল এবং কতটা কার্যকর সংস্কৃতি সেটারই পরিমাপ দেয়।

Read more...
 
বিলেতে বাংলাদেশী কমিউনিটি PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 01 January 2011 08:59

বিলেতে বাংলাদেশীদের সংখ্যা প্রায় তিন লাখ। এদের মধ্যে সম্ভবতঃ শতকরা আশি ভাগেরও অধিক বৃহত্তর সিলেট জেলার। অধিকাংশেরই আগমন ঘটেছে ষাটের দশকে এবং সেটি বিলেতের বস্ত্রশিল্পে শ্রমিক ঘাটতি পূরণে। অধিকাংশই এসেছেন সিলেটের গ্রাম থেকে। বহু লক্ষ বাংলাদেশীর বসবাস মধ্যপ্রাচ্য, আমেরিকা, এমনকি পাকিস্তানেও। তবে সেখানে কোন একক জেলার প্রাধান্য নেই। কিন্তু লক্ষণীয় হলো একমাত্র ইংল্যান্ড ছাড়া আর কোন দেশেই বাংলাদেশীরা কোন কমিউনিটি গড়ে তুলতে পারিনি। মধ্যপ্রাচ্যে অবস্থানকারীদের অধিকাংশই অস্থায়ী শ্রমিক। যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তানের বাংলাদেশীদের বিরাট অংশ এখনও সেখানে স্থায়ী ঠিকানা গড়ে তুলতে পারিনি। তারা ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে এক বিশাল এলাকা জুড়ে। আর এমন ভাসমান ও বিক্ষিপ্ত জনগোষ্ঠি কখনই কোন দেশে কম্যুনিটি গড়ে তুলতে পারে না। কারণ, কম্যুনিটি গড়ার জন্য অপরিহার্য হলো মজবুত নেট ওয়ার্ক। একই জেলা থেকে আগত হওয়ার কারণে সেটি বিলেতের বাংলাদেশীদের মাঝে বিদ্যমান।

Read more...
 
একতা এত অরিহার্য কেন? PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 01 January 2011 09:50

মুসলমানদের বিরুদ্ধে বুশ ও তার মিত্রদের ঘোষিত ক্রুসেড এখন আর কোন একক মুসলিম দেশে সীমাবদ্ধ নয়। এখন এটি বিশ্বময়। কোথাও হচ্ছে সেটি সামরিক আগ্রাসন রূপে; যেমন ইরাক, আফগানিস্তান, ফিলিস্তিন, লেবানন ও চেননিয়ায়। আবার কোথাও হচ্ছে সাংস্কৃৃতিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক আধিপত্যের বেশে। সামরিক ক্রসেডে লক্ষ লক্ষ নিরপরাধ মানুষ মারা পড়ছে ইরাক, আফগানিস্তান, ফিলিস্তিন ও চেননিয়ায়। অপর দিকে অসামরিক ক্রসেডে সামান্য পর্দা নিয়ে রাস্তাঘাটে বিপদে পড়ছে ইউরোপ-আমেরিকায় বসবাসকারি মুসলিম মহিলারা। এবং জানমাল ও ইজ্জত আবরু নিয়ে বেঁচে থাকায় দায় হচ্ছে ভারত, থাইলান্ড, বার্মা, চীন, ফিলিপাইনসহ বহু অমুসলিম দেশে বসবাসকারি বহু কোটি মুসলমানের। ইসলামি শিক্ষা ও আল্লাহর আইন প্রতিষ্ঠার ইসলামের অতিশয় ফরয বিষয়গুলোও অসম্ভব হচ্ছে এমনকি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ট দেশে। অথচ যারা আল্লাহতায়ার খাতায় নিজেদের নাম মুসলমানরূপে লেখাতে চায় তাদের উপর আল্লাহর আইন বা শরিয়ত প্রতিষ্ঠা কাজটি হল ণূন্যতম ঈমানী দায়বদ্ধতা। এমন কি মোঘল ও সুলতানী আমলের শাসকগণও সে দায়বদ্ধতা পালন করেছিল নিষ্ঠার সাথেই। আইনআদালত থেকে আল্লাহর আইন সরানোর ন্যায় কুফরি কাজ সেসব স্বৈরাচারি শাসকগণও করেননি। অথচ আজ মুসলিম বিশ্বে শুধু স্বৈরাচারই নয়, বরং তার চেয়েও জঘন্য ও ভয়ংকর শত্র“গণ শাসক রূপ জেঁকে বসেছে। তাদের বড় অপরাধ, তারা আল্লাহ ও তাঁর আইনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী। তারা অসম্ভব করছে শুধু আল্লাহর আইনের বাস্তবায়নই শুধু নয়, বরং অভাবনীয় করে তুলেছে বিশ্ব মুসলিমের ঐক্যকেও।

Last Updated on Monday, 03 January 2011 17:10
Read more...
 
সমাজ-বিপ্লবের ধারণা এবং ইসলামী সমাজ-দর্শন PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Thursday, 05 August 2010 19:12

সমাজ-বিপ্লব কী?

সমাজ-বিপ্লব বলতে বুঝায়? সময়ের তালে সমাজ বা রাষ্ট্রে বহু কিছ্ই বদলে যায়। সেসব পরিবর্তন ঘটে যেমন বিপুল সংখ্যক মানুষের জন্ম-মৃত্যুর মধ্য দিয়ে , তেমনি ঘটে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ-বিগ্রহ,দেশের মানচিত্র-বদল, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় বার বার পরিববর্তন,ভয়াবহ মহামারি ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের মধ্য দিয়ে। এরূপ পরিবর্তনে বহুলক্ষ বা বহুকোটি মানুষের মৃত্যু হলেও বা কালের স্রোতে জাতীয় জীবনে বহুশত বছর অতিক্রান্ত হলেও সমাজ বদলায় না, বিপ্লবও আসে না। সমাজ পরিবর্তন বা বিপ্লবের অর্থ নিছক রাষ্ট্রগড়া নয়, কোন রাজবংশের নিপাত নয়, সরকার পরিবর্তনও নয়। কিছু রাস্তাঘাট, দালানকোঠা বা কলকারখানা নির্মানও নয়। সমাজে কতটা পরিবর্তন বা বিপ্লব আসলো সেটি পরিমাপের কিছু সুনির্দ্দিষ্ট মানদন্ড আছে। সেটি যাচাই হয় জীবন ও জগত নিয়ে মানুষের ধ্যাণ-ধারণা, ধর্ম, রুচী, ন্যায়বোধ, মূল্যবোধ, বিচার-আচার, বসবাস ও জীবনযাত্রা, অর্থনীতি, প্রযুক্তি, শিল্প ও সংস্কৃতি, পোষাক-পরিচ্ছদ, সাহিত্য ও জ্ঞান-বিজ্ঞানে কতটা পরিবর্তন আসলো তা থেকে।

Last Updated on Tuesday, 26 October 2010 00:41
Read more...
 
<< Start < Prev 1 2 Next > End >>

Page 2 of 2
Dr Firoz Mahboob Kamal, Powered by Joomla!; Joomla templates by SG web hosting
Copyright © 2017 Dr Firoz Mahboob Kamal. All Rights Reserved.
Joomla! is Free Software released under the GNU/GPL License.