Home •বাংলাদেশ
•বাংলাদেশ
হাসিনা সরকারের অপরাধনামা ও ডুবন্ত নৌকা PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Thursday, 28 November 2013 03:03

অপরাধ আল্লাহতায়ালার বিরুদ্ধে

শেখ হাসিনা ও তার আওয়ামী সরকারের মুল অপরাধটি স্রেফ জনগণের বিরুদ্ধে নয়, বরং খোদ মহান আল্লাহতায়ালা ও তাঁর কোরআনী আহকামের বিরুদ্ধে। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহতায়ালা শুধু সিরাতুল মোস্তাকীমই বাতলিয়ে দেননি, বরং সে সিরাতুল মোস্তাকীমে চলার পথে মু’মিনের জীবনে কীরূপ কর্মকান্ড বা মিশন হবে সেটিও সুনির্দিষ্ট করে দিয়েছেন। মিশন তো তাই যা মিশনারি ব্যক্তিটি প্রতিদিন করে, এবং যা নিয়ে তার লাগাতর ভাবনা ও ত্যাগ-সাধনা। সে পথ বেয়েই সে তার স্বপ্নের ভূবনে পৌঁছে। আর সে স্বপ্ন বা ভিশনটি হলো,আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দ্বীনের বিজয়। সে লক্ষ্যে আল্লাহতায়ালার নির্দেশিত মিশনটি হলো “আ’মিরু বিল মারুফ ওয়া নেহি আনিল মুনকার”, অর্থাৎ “ন্যায়ের নির্দেশ দান ও অপরাধীদের নির্মূল”। তবে সে বিজয় জায়নামাযে আসে না। মসজিদ-মাদ্রাসায় বা সুফীর আখড়াতেও আসে না। সে মিশন নিয়ে বাঁচায় অনিবার্য হয়, আল্লাহবিরোধী শক্তির বিরুদ্ধে লাগাতর জিহাদ। রাষ্ট্র থেকে নমরুদ-ফিরাউনের ন্যায় অপরাধীদের নির্মূল করাই যে মহান আল্লাহতায়ালার সূন্নত সেটি তিনি নিজে তাদের নির্মূল করে দেখিয়েছেন। তিন চান, মানুষ একাজে তার আনসার বা সহকারি হোক। ঈমান নিয়ে বাঁচার এ এক গভীর দায়বদ্ধতা। দায়বদ্ধতাই তাকে বেঈমানদের থেকে পৃথক করে ফেলে।

Last Updated on Saturday, 30 November 2013 10:58
Read more...
 
ভারতের বাংলাদেশভীতি ও গ্রান্ড স্ট্রাটেজী PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 17 November 2013 18:21

ভারতের বিনিয়োগ

হাসিনা-বিরোধী আন্দোলন যতই তীব্রতর হচ্ছে ভারতের শাসক মহলে ততই বাড়ছে বাংলাদেশভীতি।শেখ হাসিনার উপর ভারতীয় নেতাদের প্রগাড় আস্থা। কারণ শেখ হাসিনা ভারতকে যতটা সুযোগ-সুবিধা দিয়েছে তা অন্য কোন দেশ থেকে পেতে হলে ভারতকে যুদ্ধ করতে হতো বা সেদেশের অর্থনীতিতে বিশাল বিনিয়োগ করতে হতো। যেরূপ পশ্চিম ইউরোপীয় দেশসমুহ ও জাপানকে বন্ধু রূপে পেতে মার্কিনীরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সেসব দেশের পুননির্মাণে বহু বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে। অথচ ভারত বাংলাদেশ থেকে সেটি পেয়েছে কোনরূপ অর্থব্যয় না করেই। কারণ চাকর বাকর পেতে বড় কিছুই বিনিয়োগ করতে হয় না। তারা ভাবে, এজন্য কিছু উচ্ছিষ্ট ব্যয়ই যথেষ্ঠ। ভারতীয় বর্ণহিন্দুরা শেখ মুজিব, শেখ হাসিনা বা কোন বাঙালী মুসলমানকে কোনকালেই কি চাকর বাকরের চেয়ে বেশী কিছু ভেবেছে? ভারতের মুসলমানদেরও কি তারা তেমন কিছু ভাবে? সংখ্যায় তারা জনসংখ্যার শতকরা ১৬ ভাগ হলে কি হবে,সরকারি চাকুরিতে মুসলমানদের হিস্যা শতকরা ৪ ভাগেরও কম। পাশের পশ্চিম বাংলার মুসলমানদের বঞ্চনা তো আরো করুণ।তারা সেখানে শতকরা ২৮ভাগ, অথচ সরকারি চাকুরিতে তাদেরকে শতকরা ৫ ভাগও দেয়া হয়নি।

Last Updated on Sunday, 24 November 2013 08:50
Read more...
 
স্বাধীনতার সুরক্ষা ও স্বৈরাচার নির্মূলের এখনই সময় PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 27 October 2013 10:00

লগ্ন স্বৈরাচার নির্মূলের

বাংলাদেশ আজ  চরম রাজনৈতীক সংকটে।দেশ আজ রক্তাত্ব গৃহযুদ্ধের মুখে। সংকটের মূল কারণ,গদি ছাড়তে রাজী নন হাসিনা। মেয়াদ শেষ হলেও প্রধানমন্ত্রীর গদিটি তার চাই। হাসিনা চায় না,একটি নিরপেক্ষ ও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হোক এবং সবাই একই সমতলে দাঁড়িযে নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ পাক। হাসিনার এ কৌশলটি গোপন নয়,দুর্বোধ্যও নয়। তিনি চান,নিজ তদারকিতে নির্বাচন দিয়ে নিজের স্বৈরশাসনের মেয়াদকে আরো ৫ বছরের জন্য বাড়িয়ে নিতে। সেটি যেমন বিরোধী দল বুঝে। তেমনি সাধারণ জনগণও বুঝে। স্বৈরাচারি সরকারকে যে নির্বাচনে পরাজয় করা যায় না সেটিও জনগণ বুঝে। জনগণ সেটি বুঝেছে স্বৈরাচারি এরশাদের ১১ বছরের শাসন থেকে।এরশাদ নির্বাচন দিলেও সেটি ছিল তার স্বৈরশাসনের মেয়াদ বাড়নোর কৌশল। সমগ্র প্রশাসন ময়দানে নামতো তাকে বিজয়ী করার কাজে। ভোট জালিয়াতি তখন একটি প্রশাসনিক শিল্পে পরিণত হয়েছিল। তার মত ধিকৃত দুর্বৃত্তকে পরাজিত করা সম্ভব হয়েছিল একমাত্র রাজপথেই। হাসিনার বিরুদ্ধেও বিকল্প পথ নাই। তাকেও পরাজিত করতে হবে রাজপথেই।আর সে লক্ষ্যেই ১৮ দলীয় জোট লাগাতর তিন দিনের হরতালের ডাক দিয়েছে।

Last Updated on Sunday, 27 October 2013 10:11
Read more...
 
মুন্তাসির মামূনের ইতর মানস ও রণহুংকার PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 03 November 2013 08:28

 

এটি কি শিক্ষকের ভাষা?

সভ্য বা অসভ্য মানুষের পরিচয়টি দেহের অবয়বে ও পোষাকপরিচ্ছদে ধরা পড়ে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রিতেও নয়। ধরা পড়ে মুখের কথা ও লেখনিতে। লেখনির মধ্য দিয়েই কথা বলে ব্যক্তির চেতনা ও ঈমান। মানব ইতিহাসে ভয়ানক অপরাধগুলি শুধু মারণাস্ত্র দিয়ে হয়নি, হয়েছে মুখের ভাষা ও লেখনি দিয়ে। অপরদিকে কথা ও লেখনি দিয়েই সংঘটিত হয়েছে সত্যপ্রচার, সত্য-প্রতিষ্ঠা ও মিথ্যার প্রতিরোধের ন্যায় বড় বড় মহান কাজ। জান্নাত লাভের মূল কাজটির শুরুও তো হয় মুখের কথা দিয়েই। সেটি মহান আল্লাহতায়ালা ও তাঁর রাসূল ও তাঁর কিতাবের প্রতি বিশ্বাসভরা কালেমা পাঠ করে। তেমনি জাহান্নামে পৌঁছার জন্য জিহ্বার পাপই যথেষ্ট। দেহের এই ক্ষুদ্র অঙ্গ দিয়েই জঘন্য পাপীরা মহান আল্লাহতায়ালা ও তাঁর রাসূলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের ঘোষণা দেয়। আল্লাহতায়ালা, তাঁর রাসূল ও তাঁর দ্বীনকে অস্বীকার করা, অপমান করা বা গালী দেয়ার ন্যায় অপরাধে কি কোন মারাণাস্ত্র লাগে? মুখের কথা ও লেখনি তো সেজন্য যথেষ্ট। তাই রোজ হাশরের বিচার দিনে পাল্লায় তোলা হবে ব্যক্তির কথা ও লেখনিকেও। এমন কি সভ্যদেশের আদালতেও শুধু অস্ত্র ও অর্থের ব্যবহারটাই বিচারে আনা হয় না, বিচারে আনা হয় মুখের ভাষা ও লেখনির প্রয়োগকেও।

Read more...
 
মেঠো আদালত এবার উচ্চ-আদালতে PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Thursday, 19 September 2013 23:50

আওয়ামী নৃশংসতা ও অধিকৃত আদালত

বাংলাদেশে আলেম-উলামা ও ইসলামপন্থি নেতাকর্মীদের হ্ত্যা বা তাদেরকে ফাঁসিতে চড়িয়ে খুনের নেশাটি আওয়ামী বাকশালী চক্রের বহুদিনের। একাত্তরের যুদ্ধে পাকিস্তানের পরাজয়ের পর বহুহাজার আলেম ও ইসলামী আন্দোলনের বহুহাজার নেতাকর্মীকে তারা খুন করে।নিরস্ত্র রাজাকারদের বেয়োনেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করাটি ছিল আওয়ামী ক্যাডারদের রীতি।১৮ই ডিসেম্বর ঢাকা স্টেডিয়ামে হাত-পা বাঁধা কয়েকজন রাজাকারকে কাদের সিদ্দিকী যেভাবে বেয়োনেট দিয়ে হত্যা করে সে বীভৎস চিত্রটি বহুদেশের পত্রপত্রিকায় প্রকাশ পেয়েছিল।সে খুনের চিত্রটি দেখে প্রখ্যাত সাংবাদিক ওরিয়ানী ফালাচী লিখেছিলেন,“মুক্তিবাহিনী বেয়োনেট দিয়ে যেরূপ হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে তা প্রত্যক্ষ করার পর এ রকম সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেলেছিলাম,এই ঘৃন্য নগরীতে আমি আর পা রাখবো না।” আওয়ামী বাকশালীরা নৃশংস ভাবে হত্যা করেছিল ভারতীয় হিন্দুদের আক্রমণ থেকে প্রাণ বাঁচাতে আসা বহুহাজার অবাঙালীকেও।অবাঙালীদের ঘরবাড়ি থেকে উৎখাত করে তাদেরকে রাস্তায় নামানো হয়।

Last Updated on Friday, 20 September 2013 00:00
Read more...
 
<< Start < Prev 1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 Next > End >>

Page 6 of 23
Dr Firoz Mahboob Kamal, Powered by Joomla!; Joomla templates by SG web hosting
Copyright © 2017 Dr Firoz Mahboob Kamal. All Rights Reserved.
Joomla! is Free Software released under the GNU/GPL License.