Home •বাংলাদেশ
•বাংলাদেশ
মুনতাসির মামুনের মুরতাদ প্রসঙ্গ ও হাসীনার হেলেপড়া কুরসিতে শক্ত ধাক্কা PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 23 March 2013 21:27

মুনতাসির মামুনের মনকষ্ট

দৈনিক জনকন্ঠের ১৭ই মার্চ,২০১৩ সংখ্যায আওয়ামী ঘরানার বুদ্ধিজীবী মুনতাসির মামুন মনের প্রচন্ড ক্ষেদ নিয়ে লিখেছেন, তাকে কেন নাস্তিক ও মুরতাদ বলা হয়।তার অভিযোগ,“এ নিয়ে আমাকে কয়েকবার মুরতাদ ঘোষণা করা হলো।..গত দুই দশকে এই ধরনের অনেক প্রতিষ্ঠান আমাদের মুরতাদ ঘোষণা করেছে,জামায়াতীরা বলছে আমরা নাস্তিক।” আল্লামা শফির হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে তার অভিযোগ, হেফাজতে ইসলামও তাকে জামায়াতের মত মুরতাদ ও নাস্তিক বলছে। তার কথা,“তা হলে হেফাজতে ইসলামের সঙ্গে জামায়াতের পার্থক্য কী রইল?” তিনি মুরতাদের একটি অর্থ খাড়া করেছেন। বলেছেন, “মুরতাদ মানে কী? ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করে ফিরে যাওয়া।” মুরতাদ প্রসঙ্গে উলামাদের মতের ব্যাখা দিতে গিয়ে বলেছেন,“ইসলাম কেউ ত্যাগ করেছে তাকে মুরতাদ বলা ও তার ওপর হামলা করা। এইটি উলেমাদের মত। কোরান বা রাসূলের (স) নয়।” এখানে তিনি উলামাদের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেছেন। তাদের বিরুদ্ধে তার অভিযোগ উলামা এমন কিছু বলছেন যা পবিত্র কোরআন-হাদীসে নাই। অর্থাৎ তার ভাষায় উলামাগণ মিথ্যাবাদী। এবং অভিযোগোর সুরে বলেছেন, ‘উলেমাদে’র কাছে আমরা তো দেশ আর ধর্ম ইজারা দিইনি।”

Last Updated on Sunday, 24 March 2013 00:11
Read more...
 
ডাকাতি ও গণহত্যায় বুদ্ধিজীবীদের উস্কানি এবং কলংকিত বাংলাদেশ PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 10 March 2013 15:00

গণহত্যা বাংলাদেশে

ফিরাউন, হিটলার, স্টালিন বা মুজির নিজে হাতে মানুষ খুন করেছেন -সে প্রমাণ নাই। অথচ মানব ইতিহাসে তারাই অতি জঘন্যতম গণগত্যার নায়ক। হুকুম পালনে অসংখ্য চাকর-বাকর থাকলে কি নিজ হাতে মানুষ খুনের প্রয়োজন পড়ে? বাংলাদেশের আইনেও আদালতে প্রমাণিত কোন খুনিকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যার অধিকার কোন ম্যাজিস্টেটের থাকে না। জেলা জজেরও থাকে না। তাঁকেও দেশের হাইকোর্ট থেকে অনুমতি নিতে হয়। কিন্তু স্বৈরাচারি সরকারগণ মানবহত্যার সে অধিকার তাদের আজ্ঞাবহ অশিক্ষিত দাস-সৈনিকদের দেয়। মুজিব তাই সে অধিকার দিয়েছিলেন রক্ষিবাহিনীর সাধারণ সেপাইদেরকে। মুজিবের এ সেপাইগণ ৩০ হাজারের বেশী মানুষ নির্বিচারে হত্যা করেছিল। দেশে মশামাছি মারলে যেমন বিচার হয়না, তেমনি ৩০ হাজার মানুষ হত্যারও কোন বিচার হয়নি। ফলে হত্যাকারি সেপাইদের মধ্যে কারো গায়ে কোন আঁচড়ও লাগেনি। অথচ কোন সভ্যদেশে এমন হত্যাকান্ড হবে এবং হত্যাকান্ড শেষে তার নায়কগণ বিনা বিচারে পার পেয়ে যাবে সেটি কি ভাবা যায়? কিন্তু বাংলাদেশে সেটিই রীতি।

Read more...
 
বাংলাদেশে জিহাদ ও দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Saturday, 23 February 2013 21:00

দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ

রক্তাক্ষয়ী বিশাল যুদ্ধ উপহার দেয়াই আওয়ামী লীগের রাজনীতি। দলটি একটি ভয়ংকর যুদ্ধ উপহার দিয়েছিল একাত্তরে। সম্প্রতি শাহবাগের যুবকদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে তারা আরেকটি মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণা দিয়েছে। একাত্ত্বরের যুদ্ধটি ছিল পাকিস্তানের বিরুদ্ধে। হাজার হাজার মানুষ সে যুদ্ধে নিহত হয়েছিল। আর এবারের যুদ্ধ ইসলামপন্থিদের নির্মূলে। তারা এবারে ক্ষমতায় এসে সংবিধান থেকে আল্লাহর উপর আস্থার বানি সরিয়েছে। শুধু সে টুকুতে তারা খুশি নয়। এবার চায়,দেশ থেকে ইসলাম ও সকল ইসলামপন্থিদের নির্মূল। এ যুদ্ধের সুস্পষ্ট ঘোষণা এসেছে শাহবাগের জমায়েত থেকে। তারা চায় সকল রাজাকারের ফাঁসী। চায়,সকল ইসলামি দলের নিষিদ্ধকরণ।এমন কি যেসব ইসলামপন্থিদের জন্ম একাত্তরের ২০ বছর পর তারাও তাদের দৃষ্টিতে রাজাকার। দ্বিতীয় এ যুদ্ধের নেতৃত্বে আছে এমন সব উগ্র নাস্তিক-মুরতাদ যাদের মনপ্রাণ মহান রাব্বুল আলামীন,তাঁর মহান রাসূল (সাঃ),রাসূলের বিবিগণ এবং সাহাবায়ে কেরামের বিরুদ্ধে ঘৃনাপূর্ণ বিষে কানায় কানায় পরিপূর্ণ। ফলে তাদের দূষমনিটা শুধু রাজাকার বা দেশের ইসলামপন্থিদের বিরুদ্ধে নয়,বরং খোদ মহান আল্লাহতায়ালা,তার রাসূল ও ইসলামের বিরুদ্ধে। সে দুষমনিটা তারা গোপনও রাখেনি। ইসলামের এ শত্রুপক্ষটি সেটি প্রকাশ করে আসছে তাদের ব্লগে। তাদের বিরুদ্ধে ইসলামের নির্দেশটি কি এবং মুসলমানদের করণীয় কি –ইসলামে সেটি সুস্পষ্ট। চোর-ডাকাত,খুনি,মিথ্যুক ও ব্যাভিচারির শাস্তি কীরূপ হবে সে ফয়সালার ভার আল্লাহতায়ালা মানুষের হাতে দেননি। আল্লাহতায়ালা শুধু ইবাদতের বিধান দেননি,আইনের বিধানও দিয়েছেন। সে বিধানটি তিনি দিয়েছেন শরিয়তে। মুসলমানের দায়িত্ব হলো সে বিধানের বাস্তবায়ন।

Last Updated on Sunday, 24 February 2013 15:29
Read more...
 
আনন্দবাজারের মিথ্যাচার,হাসিনার দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ ও প্রণব মুখার্জির আশ্বাস PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Tuesday, 05 March 2013 21:39

আনন্দবাজারের মিথ্যাচার

ঢাকায় তিন দিনের হরতাল চলছে। সারাদেশে যুদ্ধাবস্থা,পুলিশ ও র‌্যাব নির্বিচারে গুলি ছুড়ছে।  গুলিতে নিহত হয়েছে শতাধিক মানুষ। সারা দেশে লাশ আর লাশ। হরতালের কারণে মানুষ আটকা পড়েছে নানা স্থানে।ঘৃণা ও ক্ষোভে সারা দেশ জ্বলে উঠেছে। চরম আক্রোশে বিক্ষুব্ধ মানুষ এমন কি পুলিশের গাড়িতে আগুন দিচেছ।হামলা হচ্ছে থানায় ও টিএনও অফিসে।জ্বলছে দূরপাল্লার ট্রেন। রাতে পুলিশও রাস্তায় নামতে ভয় পাচ্ছে। বন্ধ হয়ে গেছে স্কুলকলেজ,স্থগিত হয়ে গেছে বিভিন্ন পর্যায়ের পরীক্ষা। খোদ ঢাকাতে হাজার হাজার পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা সত্ত্বেও স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ভেঙ্গে পড়েছে। এমন হরতাল দেশে পূর্বে কখনো হয়নি। আল –জাজিরাসহ বিভিন্ন টিভি চ্যানেল ছবি দেখাচ্ছে ঢাকার জনবিরল ফাঁকা রাস্তা ও বন্ধ দোকান-পাট। সড়কে পুলিশের সাঁজোয়া গাড়ি ছাড়া কোন গাড়ি চলছে না। একই রূপ চিত্র দেখাচ্ছে বহু দেশী টিভি চ্যানেল।

 

Last Updated on Tuesday, 05 March 2013 21:49
Read more...
 
স্বৈরাচার অধিকৃত বাংলাদেশ এবং বিদ্রোহ আদালতের বিরুদ্ধে PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 17 February 2013 21:28

 

আদালতের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ

সরকারি উদোগে ঢাকার কেন্দ্রবিন্দু শাহবাগ মোড়ে শুরু হয়েছে আদালতের বিরুদ্ধে লাগাতর বিদ্রোহ। এ বিদ্রোহ সম্প্রতি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের যে রায় দিয়েছে তার বিরুদ্ধে। তাদের কথা, আব্দুল কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড নয়,ফাঁসি দিতে হবে। এ দাবী নিয়ে শাহবাগ মোড়ে হাজির হয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ জোট সরকারের দলীয় ক্যাডারগণ। তাদের কথা সুস্পষ্ট,তারা বিচার চায় না,বিচারের নামে যা চায় সেটি ফাঁসি। তাদের সে দাবীর সমর্থন জানিয়ে বাংলাদেশের সংসদে আলোচনা হয়েছে। তাদের সে দাবীর সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে বক্তৃতা দিয়েছেন শুধু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নন,আওয়ালীগ ও অন্যান্য দলের আরো বহু নেতা। শেখ হাসিনা আদালতের বিচারকদের উদ্দেশ্যে বলেছেন,শাহবাগের সমাবেশে যে দাবী উঠেছে বিচারকদের সেগুলি শুনতে হবে। তাদের কথা,বিচার প্রচলিত আইন, সাক্ষীসাবুদ ও নথিপত্রের ভিত্তিতে লিখলে চলবে না, লিখতে হবে শাহবাগের মোড়ে সরকারি দলের নেতাকর্মী ও ক্যাডারদের পক্ষ থেকে যে দাবী উঠেছে তারা ভিত্তিতে। ফলে প্রকৃত বিচারক এখন আর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের বিচারকগণ নন,বরং সমাবেশের নেতারা। বিচারকদের কাজ স্রেফ সরকার সমর্থক ছাত্রদের ফাঁসীর দাবীতে স্বাক্ষর ও আদালতের সিল লাগিয়ে দেয়া। বিচারের নামে প্রহসন আর কাকে বলে!

Read more...
 
<< Start < Prev 1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 Next > End >>

Page 10 of 23
Dr Firoz Mahboob Kamal, Powered by Joomla!; Joomla templates by SG web hosting
Copyright © 2017 Dr Firoz Mahboob Kamal. All Rights Reserved.
Joomla! is Free Software released under the GNU/GPL License.