Home •আন্তর্জাতিক
•আন্তর্জাতিক
প্রতিবিপ্লবের মুখে মিশরের বিপ্লব PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Sunday, 01 July 2012 23:26

ষড়যন্ত্র প্রথম দিন থেকেই

কোন বিপ্লবই শত্রু-মুক্ত নয়। প্রতিটি বিপ্লবের পরই শুরু হয় প্রতিবিপ্লবের প্রবল প্রচেষ্টা। বিপ্লব ঘটে প্রতিষ্ঠিত একটি সরকারকে হটিয়ে। বিপ্লবের পর পরাজিত শক্তি ও তার দেশী-বিদেশী মিত্ররা কখনই নীরবে বসে থাকে না। কারণ, বিপ্লবের ফলে তাদের প্রতিষ্ঠিত কায়েমী স্বার্থ বিপদে পড়ে। ফলে সে স্বার্থ উদ্ধারের লক্ষ্যে প্রতিবিপ্লব শুরু হয় বিপ্লবের প্রথম দিনটি থেকেই। তাছাড়া যে স্বৈরাচারি হুসনে মোবারককে হটিয়ে মিশরে বিপ্লব সংঘটিত হলো সে ছিল ইসরাইল ও পাশ্চাত্যের অতি বিশ্বস্ত মিত্র। গাজায় যখন ইসরাইলী বাহিনী অতি বর্বর ভাবে ফিলিস্তিনীদের বিরুদ্ধে নিধনযজ্ঞ চালাচ্ছিল তখন সে হত্যাযজ্ঞ থেকে প্রাণ বাঁচাতে আসা ফিলিস্তিনীদের হুসনে মোবারক মিশরে ঢুকতে দেননি। মিশর সরকারের পক্ষ থেকে তারা কোনরূপ সহানুভূতিও পায়নি। তাঁর সে নির্মম আচরণটি পশ্চিমা মহলে সেদিন প্রচন্ড ভাবে প্রশংসিত হয়েছিল। তবে ইসরাইল ও পাশ্চাত্যের পক্ষে সে বর্বর খেলাটি হুসনী মোবারক সেদিন একা খেলেননি। তাঁর সাথে ছিল দেশের বিশাল প্রশাসন, সেনাবাহিনী, বিচারকবাহিনী, তাঁবেদার মিডিয়া ও হুসনে মুবারকের নিজ দলের বিশাল কর্মিবাহিনী। মুবারক আজ অপসারিত হয়েছে বটে তবে বাঁকিরা অক্ষত রয়ে গেছে। তাদের হাতে রয়ে গেছে বিপুল অর্থ ও সামরিক-বেসামরিক শক্তি। রয়ে গেছে দেশের বাইরে বিশাল বিদেশী মিত্ররাও। ফলে অভাব নেই সেদেশে প্রতিবিপ্লব ঘটাতে আগ্রহী হবে এমন লোকের।

 

Last Updated on Monday, 02 July 2012 10:11
Read more...
 
পাকিস্তানে রাজনীতির নতুন মোড় PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Wednesday, 11 January 2012 23:34

দেশ বিভক্ত দ্বিজাতিতে

পাকিস্তান এখন দ্বিজাতিতে বিভক্ত। একটি ইসলামের পক্ষের, অপরটি সেক্যুলারিস্টদের। উভযের ধ্যান-ধারনা, শিক্ষা-সংস্কৃতি এবং বাঁচবার লক্ষ্য যেমন ভিন্ন, তেমনি ভিন্ন তাদের রাজনীতি। এমন বিভক্তি প্রতিটি মুসলিম দেশে থাকলেও পাকিস্তানে সেটি অতি প্রকট। যতই দিন যাচ্ছে ততই সে বিভক্তি আরো তীব্রতর হচ্ছে। আর সে বিভক্তির কারণে দেশ দ্রুত সংঘাতের দিকেও এগুচ্ছে। বরং বাস্তবতা হলো, সে সংঘাত শুরুও হয়ে গেছে। ১৯৪৭য়ে দেশটির প্রতিষ্ঠার পর থেকে আজ অবধি শাসন ক্ষমতা লাগাতর দখলে আছে সেকুলারিস্টদের হাতে। তারা শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ পেয়েছিল ব্রিটিশদের হাতে। ফলে তাদের অঙ্গিকার ও দায়বদ্ধতা যতটা ব্রিটিশের শেখানো সেক্যুলারিজমের প্রতি ততটা নিজ ধর্ম ও নিজ সংস্কৃতির প্রতি নেই । ব্রিটিশদের হাতে গড়া সেক্যুলারিস্টদের সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান হলো পাকিস্তানের সেনাবাহিনী। এছাড়াও রয়েছে দেশের সেক্যুলার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, আইন-আদালত ও প্রশাসন। রয়েছে বহু সেক্যুলার রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। এতদিন এ প্রতিষ্ঠানগুলি সম্মিলিত ভাবে ইসলামিকরণের যে কোন প্রক্রিয়াকে রুখেছে। তাদের পক্ষে ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ সকল পাশ্চাত্য শক্তি।

 

Last Updated on Saturday, 14 January 2012 08:26
Read more...
 
Comments (2)
Comment
2 Sunday, 15 January 2012 12:33
M Mubinul Islam

Nice article.All should be united against secularist,imperialist and zionist.

Feature on Pakistan
1 Saturday, 14 January 2012 03:09
Haque

Excellent writeup. This subject should be in a process of regualr up-dates, as things are changing very fast.Thanks. Best regards.  Haque, USA

মধ্যপ্রাচ্যে বিপ্লবঃ পাল্টে দিবে কি বিশ্বরাজনীতি? PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Friday, 11 February 2011 02:11

মানব ইতিহাসের সবচেয়ে মহান ও গুরুত্বপূর্ণ বিপ্লবটি সাধিত হয়েছিল আজ থেকে প্রায় চৌদ্দ শত বছর আগে। এবং সেটি ইউরোপ-আমেরিকা, চীন-ভারত বা বিশ্বের অন্য কোন দেশে নয়, বরং জনবিরল আরব ভূমিতে। সে বিপ্লব মানব জাতির ইতিহাসই পাল্টে দিয়েছিল। পাল্টে দিয়েছিল ন্যায়-অন্যায়, সত্য-অসত্য, কল্যাণ-অকল্যাণ, শ্লিল-অশ্লিল ও সভতা-অসভ্যতার সংজ্ঞা। বিলুপ্ত করেছিল রোমান ও পারস্য সাম্রাজ্য -সে সময়ের এ দুটি বিশ্বশক্তিকে। দ্রুত পাল্টে দিয়েছিল বিশ্বের বিশাল ভূ-ভাগের মানুষের ধর্ম, রাজনীতি, সমাজনীতি, আইন-আদালত, শিক্ষা, সংস্কৃতি, ও দর্শন। তখন বিলুপ্ত হয়েছিল ক্রীতদাস প্রথা, অধিকার পেয়েছিল নারী। সে বিশাল বিপ্লবটি যে শক্তিটির বলে সম্ভব হযেছিল সেটি কোন লোকবল, অর্থবল, বা সামরিক বলের কারণে নয়। মক্কা-মদীনাকে ঘিরে গড়ে উঠা সে ক্ষুদ্র রাষ্ট্রের সেরূপ কোন বলই ছিল না। বরং সে বিপ্লবের প্রকৃত শক্তি ছিল ইসলাম। সে ইসলামই তাদেরকে অন্যদের থেকে ভিন্নতর করেছিল।

Last Updated on Saturday, 12 February 2011 18:37
Read more...
 
Comments (1)
analytical and impressive
1 Thursday, 24 February 2011 06:50
probashimojumder

Dear brother,


Assalaamu Alaikum. Thanks and appreciatiation for  your analytical and impressive writting on the present situation in the Arab world. I do believe that Allah will lead Muslims in the right way. After a lot of suffering, these traitor leaders will fall down and Islamic civilization will return which are needed in this unstable situation.


 Regards


 Probashi Mojumder

বিন লাদেনের মৃত্যু ও মার্কিনীদের উৎসব PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Tuesday, 03 May 2011 00:57

মার্কিনী সৈন্যদের হাতে নিহত হয়েছেন ওসামা বিন লাদেন।তাঁকে হত্যা করা হয়েছে পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদ শহর থেকে মাত্র ৯০ কিলোমিটার উত্তরে এ্যাবোটাবাদ শহরে তাঁর বাসভবনে। হামলাটি হয়েছিল দুটি মার্কিন হেলিকপ্টার নিয়ে,তার মধ্যে বিধ্বস্ত হয়েছে একটি। বলা হচেছ, বিন লাদেনের মৃত্যু হয়েছে মার্কিন সৈন্যদের সাথে বন্দুক যুদ্ধে। সাথে মারা গেছেন তাঁর স্ত্রী। হত্যার পর বিন লাদেনের মৃতদেহকে মার্কিন সৈন্যরা আফগানিস্তানে নিয়ে যায় এবং তড়িঘড়ি করে উত্তর আরব সাগরে ডুবিয়ে দেয়। কবর দেয়নি এ ভয়ে,তাঁর কবরস্থান যেন তীর্থস্থানে পরিণত না হয়। বারাক ওবামার মুখ দিয়ে বিন লাদেদের মৃত্যুর খবরটি ঘোষিত হওয়ার পরই নিউয়র্কের টুইন টাওয়ারের স্থানটি শত শত মার্কিনীর আনন্দ উৎসবের স্থানে পরিণত হয়। মার্কিনী প্রশাসনের সাথে আনন্দে শামিল হয়েছে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরন, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট সারকোজীসহ অন্যান্য পাশ্চাত্য নেতারাও। তবে বারাক ওবামার নিজের আনন্দের কারণটি আরো গভীর। বিন লাদেনকে এরূপে হত্যা করায় হয়তো আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তাঁর জন্য সম্ভব হবে একটি সহজ বিজয়।

Read more...
 
Comments (1)
যেন মহান আল্লাহতায়ালা কবুল করেন
1 Saturday, 14 May 2011 06:15
Dr. Mahfuz

মাহবুব ভাই,


আসসালামু-আলাইকুম। আপনার সুন্দর প্রচেষ্টাকে যেন মহান আল্লাহতায়ালা কবুল করেন। আমি ইতিমধ্যে আপনার লেখাগুলো পড়া শুরু করেছি। তবে ফন্টের আকার ছোট হওয়ায় খুব অসুবিধা হয়। সোলায়মান লিপিতে হলে ভাল হত। আমিও কিছুটা চেষ্টা করছি। শুভেচ্ছান্তে-   মাহফুজ

আফগানিস্তানে ন্যাটোর অত্যাসন্ন পরাজয় PDF Print E-mail
Written by ফিরোজ মাহবুব কামাল   
Monday, 03 January 2011 17:28

বিগত একশত বছরের মানব ইতিহাসে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যে ঘটনাটি ঘটেছে সেটি হলো বিশ্বের দুটি বিশ্বশক্তির মাঝে একটির পরাজয় এবং বিলুপ্তি। বিংশ শতাব্দির ইতিহাসে এটিই ছিল সবচেয়ে বড় রেকর্ড। এবং সে ইতিহাস নির্মিত হয়েছিল আফগানগানদের হাতে। বিলুপ্ত সে বিশ্বশক্তিটি হলো সোভিয়েত রাশিয়া। আফগান মোজাহিদগণ দীর্ঘ ১০ বছরের যুদ্ধে সোভিয়েত রাশিয়ার এতটাই অর্থনৈতিক রক্তক্ষরণ ঘটিয়েছিল যে দেশটির পক্ষে তার বিশাল দেহ নিয়ে টিকে থাকাই সম্ভব হয়নি। সেদিন জিতেছিল আফগান মোজাহিদরা। সেটিও অন্য কোন দেশের সাথে কোয়লিশন করে নয়। সে বিজয়ের ফলে ডজন খানেক স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছিল। অথচ সোভিয়েত রাশিয়া চীনের মত জনসংখ্যায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় দেশটিকে আদর্শিক দখলে নিয়েছিল। দখলে নিয়েছিল ইউরোপের অর্ধেক রাষ্ট্রকে।

Read more...
 
<< Start < Prev 1 2 3 4 5 6 Next > End >>

Page 2 of 6
Dr Firoz Mahboob Kamal, Powered by Joomla!; Joomla templates by SG web hosting
Copyright © 2017 Dr Firoz Mahboob Kamal. All Rights Reserved.
Joomla! is Free Software released under the GNU/GPL License.